মাহির ‘পবিত্র ভালোবাসা’

মাহিয়া মাহি অভিনীত সিনেমা ‘পবিত্র ভালোবাসা’। শুক্রবার (৫ অক্টোবর) রাজধানীসহ সারাদেশে মুক্তি পাচ্ছে সিনেমাটি। এ কে সোহেলের পরিচালনায় এতে মাহির নায়ক হয়েছেন রোকন। এই ছবি ও অন্যান্য কাজ নিয়ে কথা বলেছেন মাহি।

আপনার পবিত্র ভালোবাসা সম্পর্কে বলুন- এই ছবিটার মধ্যে আগের একটা টেস্ট আছে। ছবিটা ভালো হয়েছে। আগে আমরা ছোটবেলায় যে ছবিগুলো শুক্রবার টিভিতে দেখতাম। ওই সময় ছবিগুলো দেখতে যেমন সিনেমা সিনেমা ফিল আসতো, এই সিনেমাটাও ওইরকম টাইপ। মেকিং থেকে শুরু করে। কারণ এ কে সোহেল ভাই খায়রুন সুন্দরী সিনেমা বানিয়েছিলেন। উনি ওই ধাঁচের মতোই ছবিটা বানিয়েছেন। এই ছবি থেকে মডার্ন ফিল পাওয়া যাবে না। তবে এটা একটা পিওর বাংলা সিনেমা আগে যেটা দেখতাম ওইরকম একটা সিনেমা।

আপনি এ সময়ের মানুষ। মডার্ন ছবিতেই বেশি কাজ করেছেন। আপনি বলছেন এই সিনেমাটি আগের দিনের সিনেমার মতো। সেক্ষেত্রে কাজের অভিজ্ঞতা কেমন?

আমি এই যুগের মানুষ হলেও আমি একটু ব্যাকডেটেড। আমার কেন জানি এখনও শাবনুর-সালমান শাহ’র ওই গানগুলোই পছন্দের। আমার ওই টাইপ সিনেমাতেই কাজ করতে ইচ্ছা করে। ওই টাইপ গানগুলোও পারফর্ম করতে ইচ্ছে করে। এখন যেহেতু দর্শক সবাই অনেক মডার্ন হয়ে গেছে সবাই আসলে একটু মডার্ন ছবি দেখতে চায় কিন্তু আমি বেসিক্যালি ওই জিনিসগুলোই পছন্দ করি। আমার ব্যাড লাক আমি ওইসময় না এসে এই সময়ে এসেছি। যেহেতু এই ছবিটি আগের দিনের ছবির মতো তাই কাজ করতে ভালো লেগেছে। একেবারে নতুন নায়ক আপনার বিপরীতে কাজ করেছেন।

তার ওপর আপনার আস্থা কেমন। আর দর্শক আপনার সঙ্গে তাকে কীভাবে নেবে?

এটা আসলে রিস্কের মতো। হিরো আসলে কেমন অভিনয় করবে। সে অভিনয় পারে নাকি পারে না আমি কিছুই জানতাম না। আমি তাকে কাজ কারার আগে দেখিনি। আমার কাছে মনে হয়েছে ডিরেক্টর ক্যাপ্টেন অব দ্য শিপ। সে ‘খায়রুন সুন্দরী’ বানিয়েছে তার ওপর আস্থা ছিল। আমার বিশ্বাস ছিল সে ভালো মেকিং করবে। আমি আসলে ডিরেক্টরের ওপর বেইজড করেই কাজটা করেছি। আমি ডিরেক্টরের ওপর ভরসা করেছি। আমার মনে হয়েছে এই ডিরেক্টর দুজন নতুন ছেলে মেয়েকে নিয়ে ছবি বানালেও দর্শক পছন্দ করবে।

একটা গুঞ্জন আছে…আপনি ছবিতে অভিনয় করতে কোনো বাঁছবিচার করেন না, শুধু টাকা হলেই কাজ করেন। আপনার বিপরীতে কে কাজ করবে এটা নিয়ে ভাবনা একেবারেই থাকে না। এই সম্পর্কে আপনার মন্তব্য?

এই গুঞ্জনটা সত্যি। ঘটনা সত্য। আসলে মাঝখানে আমি এমন কিছু কাজ করেছি। বাঁছবিচার করে সিনেমা করা উচিত। দর্শক সব রকম সিনেমাতে আমাকে পছন্দ করবে না। মাঝে মাঝে পারফেক্ট চুজ হয় না। আমার ক্যারিয়ারে আমি কয়েকটা ছবি ভুল সিলেক্ট করে ফেলেছি। কাজ শেষ করে আমি বুঝেছি। এরপর থেকে আমাকে শুধরে নিয়েছি। এখন থেকে আমি চিন্তা ভাবনা করেই ছবিতে কাজ করি। এজন্যই নতুন কোনো ছবিতে কাজ চূড়ান্ত করার আগে অনেক ভাবি। বছরে দুই বা তিনটা ছবি করলেও ভালো ছবিতে কাজ করতে চাই।

মাহি কি পুরানো হতে চায়, নাকি সব সময় নতুন থাকতে চায়?

আমি পুরানো হতে চাই না কখনও। আমি সব সময় নতুন থাকতে চাই। নতুন সব কিছুর ওপর মানুষের আকর্ষণ বেশি থাকে।

অন্যান্য ছবির কাজের খবর বলুন- আগামী ১৩ তারিখ থেকে ‘আনন্দ অশ্রু’ ছবির কাজ শুরু করব। ‘আমার মা আমার বেহেস্ত’ ছবির কাজ এখনও শুরুই করিনি। ওটাও শুরু হবে শিগগিরই। এছাড়া আপাতত নতুন কোনো ছবিতে সাইন করিনি।